• বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৪৫ অপরাহ্ন
  • English English French French German German
ব্রেকিং নিউজ
কুড়িগ্রামের রাস্তায় ছুটে চলেছে আইপিডিসি ‘ভালো বাসা’র গাড়ি গাইবান্ধার রাস্তায় ছুটে চলেছে আইপিডিসি ‘ভালো বাসা’র গাড়ি শিশুদের নিরাপদ যত্ন নিশ্চিতে প্যারাসুট জাস্ট ফর বেবি ও নাবিলা’র আহ্বান বাংলাদেশের বাজারে টেকনো’র নতুন চমক স্পার্ক ৮ প্রো দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ড কর্মচারী ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনে মাসুদ আলম সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে মওদুদ নির্বাচিত ফুলবাড়ী ২৯ বিজিবি সীমান্তে ৮ মাসে প্রায় ৬ কোটি টাকার মাদকসহ বিভিন্ন মালামাল আটক প্যারাসুট নারিকেল তেল-এর নতুন উৎসব প্যাক বাংলাদেশে ৩ জিবি’র স্পার্ক সেভেন স্মার্টফোন নিয়ে এলো টেকনো টেকনো ক্যামন ১৭ সিরিজ এখন দেশের সকল আউটলেটে পাওয়া যাচ্ছে বাজারে নিজেদের অবস্থানের সাথে মিল রেখে টেকনো’র নতুন স্লোগান – “স্টপ অ্যাট নাথিং”

নলডাঙ্গায় পিতলের প্রাচীনতম রথযাত্রা করোনার জন্য স্থগিত

Reporter Name / ৪৬ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশ : সোমবার, ১২ জুলাই, ২০২১

মোঃ জামিল হায়দার (জনি) নাটোর জেলা প্রতিনিধিঃ

করোনার প্রভাবে নাটোরের নলডাঙ্গার মাধনগরের প্রায় ১৫৪ বছরের পুরানো উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ পিতলের রথযাত্রা স্থগিত করা হয়েছে।

সোমবার উপজেলার পশ্চিম মাধনগরে সকাল থেকে জগনাথ দেবের পুর্জা অর্চণা ও বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ ১৫৪ বছরের পুরানো ঐতিহ্যবাহী প্রাচীনমত পিতলের রথযাত্রা শুরু হওয়ার কথা ছিল। ঐতিহ্যবাহী এ রথযাত্রায় অংশ নিতে শত শত ভক্তদের আগমনে মুখর থাকতো অন্য সময়।

কিন্ত,করোনা সংক্রমণ রোধে সামাজিক দূরুত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মানা নিশ্চিত করা যাবে না বলে এবার এই প্রাচীনতম রথযাত্রা স্থগিত করা করেছেন মন্দির কমিটি। তবে সীমিত পরিসরে জগনাথ দেবের পুজা অর্চণা করা হচ্ছে।

পশ্চিম মাধনগর রথবাড়ির মন্দির কমিটির সভাপতি পিন্টু অধিকারী জানান,মাধনগরের এই বিশেষ পিতলের রথের বেশ কিছু বৈশিষ্ট রয়েছে। রথটির উচ্চতা প্রায় ২৫ ফুট । রথটি বারো ফিট স্কয়ার। বারোটি চাকা। চাকার ভেতরে রয়েছে বারোটি পাত যেগুলো পিতলের। রথটিতে রয়েছে বারোটি কোণ বা কর্ণার এবং একশত বারোটি পিলার। মাধনগরের এই রথটি উপমহাদেশের বৃহৎ ও প্রাচীনতম।

১৮৬৭ সাল থেকে ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত যামিনী সুন্দরী বসাক এই ব্যয় ভার বহন করতেন। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় এবং স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে চুরির কবলে পড়ে রথটি। রথের নকশা, বিভিন্ন অংশ এবং রথের সারথি যেগুলো পিতলের তৈরি ছিল সব চুরি হয়ে যায়। এরপর ২০১২ সালে নতুন করে সংস্কার করা হয় রথটি। প্রতি বছর আষাঢ় মাসের তিথি অনুসারে রথযাত্রা উপলক্ষে এখানে রথের মেলা ও পুজা অর্চনা হত। বীরকুৎসা ও গোয়ালকান্দির জমিদারের হাতি এসে রথ যাত্রায় অংশ নিতো এবং রথ টানার কাজ করতো। এছাড়া অনুষ্ঠান হত দোল পূর্নিমাতে। যা এখনও চলে আসছে। রথের নামে বর্তমানে ১৫ বিঘা জমি আছে। রথটি রক্ষণাবেক্ষণ, পূজা অর্চনা করছেন পিন্টু অধিকারী। তিনি রাম কুমারের ঠাকুরের বংশধর।

দেড়’শ বছরের পুরনো এই রথটি নাটোরের একটি বিশেষ ঐতিহ্যের মধ্যে অন্যতম।
উল্টো রথযাত্রা হবে আগামী(১৯ জুলাই) সোমবার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ