• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০১:৫৬ অপরাহ্ন
  • English English French French German German
ব্রেকিং নিউজ
বাংলাদেশের বাজারে টেকনো’র নতুন চমক স্পার্ক ৮ প্রো দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ড কর্মচারী ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনে মাসুদ আলম সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে মওদুদ নির্বাচিত ফুলবাড়ী ২৯ বিজিবি সীমান্তে ৮ মাসে প্রায় ৬ কোটি টাকার মাদকসহ বিভিন্ন মালামাল আটক প্যারাসুট নারিকেল তেল-এর নতুন উৎসব প্যাক বাংলাদেশে ৩ জিবি’র স্পার্ক সেভেন স্মার্টফোন নিয়ে এলো টেকনো টেকনো ক্যামন ১৭ সিরিজ এখন দেশের সকল আউটলেটে পাওয়া যাচ্ছে বাজারে নিজেদের অবস্থানের সাথে মিল রেখে টেকনো’র নতুন স্লোগান – “স্টপ অ্যাট নাথিং” দিনাজপুরে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ভবনের লিফট ও জেলা লিগ্যাল এইড অফিসে মাতৃদুগ্ধ পান কেন্দ্রের শুভ উদ্বোধন। এন.ডি.এফ এর কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ ও নির্বাহী অফিসার বরাবর স্মারক লিপি প্রদান। দিনাজপুর পৌরসভার রাস্তাঘাট সংস্কার ও যানজট নিরসনের দাবীতে মানববন্ধন

দিনাজপুরে করোনা রোগীর কাছেও কিস্তি আদায় করবে গ্রামীণ ব্যাংক

Reporter Name / ৩৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশ : বুধবার, ২৩ জুন, ২০২১

এল এইচ আকাশ

১৫ জুন ২০২১ মঙ্গলবার সকাল ৬ টা থেকে ২১ জুন পর্যন্ত দিনাজপুর সদরে লকডাউন ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে না আসায় আবারো ২য় ধাপে ২৮ জুন পযর্ন্ত লকডাউন বাড়িয়েছে জেলা প্রশাসন।

লকডাউন কার্যকরে লাঠি হাতে বেশ জোরদার হতে দেখা যাচ্ছে প্রশাসনকে। দিনাজপুরে লকডাউনের মধ্যেও এনজিওর কিস্তি আদায়ের বিষয়টি যেন ধোয়াশার মধ্যেই রয়ে গেছে। দিনাজপুরের বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা ও জাতীয় কিছু পত্রিকায় কিস্তি আদায়ের খবর আসলেও এনজিও কর্মীদের কথা অনুযায়ী প্রশাসনের যেন নজরী পড়েনি তাদের ওপর।
২৩ জুন বুধবার সকালে উপশহর মিস্ত্রিপাড়ায় টি এম এসএস এনজিও কর্মী মোঃ হেলাল এর সাথে দেখা যায় পুলহাট শাখার টি এম এসএস ম্যানেজার মোঃ শহিদুল ইসলামকে। তিনি জানান আমাদের কোন বন্ধ নেই। আমরা কিস্তি নিবই। তাছাড়া সরকার আমাদের কোন বন্ধের নির্দেশনা দেয় নি । জেলা প্রশাসক থেকে আমরা কোন চিঠিও পাই নি।
বেলা বাড়ার সাথে সাথে মধ্য দুপুরে দেখা যায়, উপশহরের মিস্ত্রি পাড়ায় কিস্তি নিতে বাড়ী বাড়ী ঢুকছেন গ্রামীণ ব্যাংক এনজিও কর্মী অজয় রায় লকডাউনের মধ্যেও কিস্তি নিতে এসেছে কেন? জবাবে তিনি বলেন ব্যাংক,বীমা সবই তো খোলা তো আমরা কেন কিস্তি নিতে পারবো না।তাছাড়া আমাদের অফিসে কোন প্রকার চিঠি আমরা পাই নি। আমাদের অফিস থেকে আমাদের জোর করে পাঠানো হয়েছে। কিস্তি আদায়ের জন্য।
করোনা রোগীর কাছ থেকেও আপনারা কিস্তি আদায় করবেন আপনি বলেছেন এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, এখন যারা ঋণ নিচ্ছে আমরা তাদের কে বলছি। মানবতা আজ কোথায় গিয়ে দাড়িছে?

মিস্ত্রিপাড়ার বাসিন্দা আনোয়ারা বেগম জানান, আমি কিস্তি দিতে পারিনি বলে, আমার বাসায় এসেছে গ্রামীণ ব্যাংক এনজিও কর্মী অজয়। এখন দিনাজপুরে করোনায় ছড়াছড়ি তার মাধ্যমে যদি করোনা আসে ?

এবিষয়ে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক মোঃ শরিফুল ইসলামের সাথে কথা হলে, তিনি জানান আমরা দিনাজপুরের সব এনজিও গুলোকে কিস্তি আদায় না করার জন্য চিঠি দিয়েছি। আমাকে ০১৭৬১৪৯৩৫২০ এই নাম্বারে মেসেজর মাধ্যমে নাম ও কোন এনজিও জানালে আমি তাদের বিরুদ্ধে আইনআনুক ব্যবস্থা নিব।

২৩ জুন বুধবার দুপুরে উপশহর মিস্ত্রিপাড়ায় গ্রামীণ ব্যাংক এনজিও কিস্তি আদায়কারী এজিও কর্মী অজয় রায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ